রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:০৮ অপরাহ্ন


Bd-Times

ফিচার

  Print  

জিওদার্নো ব্রুনোঃ বিজ্ঞানের জন্য প্রাণ দেন যে বিজ্ঞানী

   


টাইমস ডেস্ক | প্রকাশিত: ১০:১২ এএম , মঙ্গলবার, ০৯ - অক্টোবর - ২০১৮





বর্তমান যুগকে বলা হয় জ্ঞান-বিজ্ঞানের যুগ। পৃথিবীতে এখন প্রতিদিন প্রতি মূহুর্তে হয়ে চলেছে নিত্য-নতুন উদ্ভাবন আর আবিষ্কার। আর এদের পেছেনে রয়েছেন অসংখ্য নাম-না-জানা কিংবা চেনা-জানা বিজ্ঞানীর অবদান। আবার বৈজ্ঞানিক সত্যকে প্রতিষ্ঠিত করতে গিয়ে ধর্মগুরু, সমাজ কিংবা রাষ্ট্রের কর্ণধারদের রোষানলে পড়ে জীবন হারানো বিজ্ঞানীর সংখ্যাও কম নয়। আজকে আমরা সেরকমই এক নিবেদিতপ্রাণ বিজ্ঞানী সম্পর্কে জানবো, যাঁকে আগুনে পুড়িয়ে মারা হয়েছিল। তাঁর নাম জিওদার্নো ব্রুনো। তিনি ছিলেন একাধারে দার্শনিক, গণিতবিদ, জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও জ্যোতিষী। ব্রুনোর জন্ম ১৫৪৮ সালে ইতালির নেপলস(সেই সময়ের কিংডম অব নেপলস) এর ‘নোলা’তে। তাঁর বাবার নাম ছিল জিওভান্নি ব্রুনো, আর মা ছিলেন ফ্রলিসা সভোলিনো। একটু বড় হলে তাঁকে শিক্ষাগ্রহণের জন্য নেপলসে পাঠানো হয়। প্রথমে তিনি অগাস্টিনিয়ান মঠে শিক্ষাগ্রহণ করেন। ১৭ বছর বয়সে তিনি San Domenico Maggiore মঠে যান এবং সেখানেই তিনি ‘জিওর্দানো’ নাম গ্রহণ করেন। এটি তিনি রাখেন মঠে তাঁর মেটাফিজিক্সের শিক্ষক জিওদার্নো ক্রিস্পোকে সম্মান দেখিয়ে। ১৫৭২ সালে মাত্র ২৪ বছর বয়সে তিনি পাদ্রী হিসেবে মনোনীত হন। ব্রুনো তাঁর অসাধারণ স্মৃতিশক্তির জন্য সবার কাছেই পরিচিত ছিলেন। কিন্তু তাঁর মুক্ত ও অনুসন্ধানী চিন্তা এবং সেযুগে গির্জা কর্তৃক বাজেয়াপ্ত বই পড়ার বিষয়টি তাঁকে সমস্যার মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দেয়। ১৫৭৬ সাল থেকে ব্রুনো ইতালির বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়ান। এসময়েই তিনি তাঁর রচনা On The Signs of the Times প্রকাশ করেন। ১৫৭৯ সালে নানা জায়গা ঘুরে জেনেভাতে পৌঁছান। জেনেভা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক অধ্যাপক Antoine de la Faye এর লেখার প্রতিবাদ করে এক লেখা প্রকাশ করার অপরাধে ব্রুনো ও তাঁর প্রকাশক গ্রেপ্তার হন। তাঁকে ক্ষমা চাইতে বলা হয় ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পবিত্র হতে বলা হয়। তিনি এর কোনটিই করতে অস্বীকৃতি জানান ও জেনেভা ত্যাগ করেন।


এরপর তিনি ফ্রান্সের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে লিও তে পৌঁছান। সেখান থেকে যান টুলুজে। এখানে তিনি ধর্ম তত্ত্বের উপর ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ করেন। সেখানকার ছাত্ররা তাকে দর্শন শাস্ত্রের লেকচারার হিসেবে মনোনীত করে। ১৫৮১সালে তিনি প্যারিসে আসেন। এখানে তিনি ঈশ্বর ও ধর্মতত্ত্ব নিয়ে ত্রিশটির মত বক্তৃতা দেন। ধীরে ধীরে তিনি তাঁর বাগ্মীতা ও অসাধারণ স্মৃতিশক্তির জন্য খ্যাতি লাভ করতে শুরু করেন। শেষ পর্যন্ত তাঁর মেধা রাজা ৩য় হেনরির দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়। প্যারিসে থাকাকালীন ব্রুনো একের পর এক প্রকাশ করেন De umbris idearum (On The Shadows of Ideas, ১৫৮২), Ars Memoriae (The Art of Memory, ১৫৮২) ও Cantus Circaeus (Circe's Song, ১৫৮২). এছাড়া তিনি তৎকালীন কিছু প্রচলিত দার্শনিক ধারণাকে হাস্য-রসাত্বকভাবে তুলে ধরেন তাঁর লেখা বই Il Candelaio (The Torchbearer, ১৫৮২)তে। ১৫৮৩ সালে ব্রুনো ইংল্যান্ডে গমন করেন। সেখানে তিনি কবি ফিলিপ সিডনির সাথে পরিচিত হন। ব্রুনো পরবর্তীতে তাঁর লেখা দুটি বই ফিলিপকে উৎসর্গ করেছিলেন। ব্রুনো অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে বক্তব্য দেন। কিন্তু ধীরে ধীরে অনেকের সাথে তাঁর মতের অমিল হতে শুরু করে। বিশেষ করে লিংকন কলেজের রেক্টর জন আন্ডারহিল ও অক্সফোর্ডের বিশপ (পরবর্তীতে আর্চ বিশপ অব ক্যান্টারব্যারি) জর্জ এবটের সাথে ব্রুনোর দ্বন্দ্ব চরমে ওঠে। এবট প্রায়ই ব্রুনোকে খোঁচা মারতেন কারণ ব্রুনো বিশ্বাস করতেন পৃথিবী ‘গোল’। সেযুগে মানুষের ধারণা ছিল পৃথিবী ‘সমতল’। এছাড়া তিনি এই অভিযোগ আনেন যে, ব্রুনোর লেখাগুলো আরেক ইতালীয় জ্যোতির্বিদ মারশিলো ফিচিনোর কাছ থেকে চুরি করে লেখা।


যাই হোক, এর মাঝেও ব্রুনো তাঁর লেখালেখি চালিয়ে যান। একে একে প্রকাশিত হয় মহাশূন্য নিয়ে তাঁর লেখা,

 La Cena de le Ceneri (The Ash Wednesday Supper, ১৫৮৪), De la Causa, Principio et Uno (On Cause, Principle and Unity, ১৫৮৪), De l'Infinito Universo et Mondi (On the Infinite Universe and Worlds, ১৫৮৪) as well as Lo Spaccio de la Bestia Trionfante (The Expulsion of the Triumphant Beast, ১৫৮৪) and De gl' Heroici Furori (On Heroic Frenzies, ১৫৮৫)। এর মাঝে প্রথম লেখাটি নিয়ে বিতর্ক ছড়িয়ে পড়ে। নিজের যুগের চেয়ে এগিয়ে থাকা বৈপ্লবিক ধ্যান-ধারণার কারণে ব্রুনো ধীরে ধীরে তাঁর বন্ধু ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের হারাতে শুরু করেন। ১৫৮৫ সালে তিনি আবার ফ্রান্সে ফিরে যান। এবার পরিস্থিতি তাঁর অনুকূলে ছিল না। তাঁর লেখা বইগুলো নিয়ে আগে থেকেই বিতর্ক ছড়িয়ে পড়েছিল। ফ্রান্সে এসে তিনি গণিতবিদ ফিব্রিজো মরদেন্তের সাথে ভয়াবহ বাকবিতণ্ডাতে জড়িয়ে পড়েন। বিষয় ছিল ফিব্রিজোর উদ্ভাবিত ‘ডিফ্রেন্সিয়াল কম্পাস’। ব্রুনো ফ্রান্স থেকে চলে গেলেন জার্মানী। তিনি মারবার্গ থেকে যান উইটেনবার্গ। সেখানে মহান দার্শনিক এরিস্টটলের উপর বক্তব্য দেন। এরিস্টটলের অনেক তত্ত্বের সাথে তিনি একমত ছিলেন না। যে কারণে তাঁকে সেখানে কেউ পছন্দ করে নি। জার্মানীতে থাকাকালীন ১৫৮৯ থেকে ৯০ সাল নাগাদ ল্যাটিন ভাষায় তাঁর লেখাগুলো প্রকাশিত হয় যার মাঝে ছিল De Magia (On Magic), Theses De Magia (Theses On Magic) and De Vinculis In Genere (A General Account of Bonding). All these were apparently transcribed or recorded by Besler (or Bisler) . এছাড়া প্রকাশিত হয় De Imaginum, Signorum, Et Idearum Compositione (On The Composition of Images, Signs and Ideas, ১৫৯১). ১৫৯১ সালে তিনি ইতালি ফিরে আসেন। আসার কিছুদিন পরই জিওভাননি মচেনিগো নামে এক ব্যক্তি তাঁর বিরুদ্ধে ধর্ম ও ঈশ্বরে বিরোধীতার অভিযোগ আনেন। ১৫৯২ সালের ২২ মে ব্রুনোকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁকে ভেনিশিয়ান ইনকুইজিশনের মুখোমুখি করা হয়। ইনকুইজিশন হলো রোমান ক্যাথলিক গির্জার একটি বিচার ব্যবস্থা, যেখানে ধর্ম অবমাননাকারীদের বিচার করা হতো। ব্রুনো খুব দক্ষতার সাথে তাঁর বক্তব্য আদালতে উপস্থাপন করেন ও তাঁর বিরোধীতাকারীদের যুক্তি খণ্ডন করেন। বেশ কয়েক মাস ধরে জেরা চলার পর ১৫৯৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে তাঁকে রোমে পাঠানো হয়। সাত বছর ধরে রোমে ব্রুনোর বিচারকাজ চলতে থাকে। এসময়ে তাঁকে নোনা টাওয়ারে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়। সেই মহা ঐতিহাসিক বিচারকাজের গুরত্বপূর্ণ কিছু নথি হারিয়ে গিয়েছে। বেশিরভাগই সংরক্ষণ করে রাখা হয়েছিল এবং ১৯৪০ সালে বিচারকাজের সেসময়ের একটি সার-সংক্ষেপ পাওয়া যায়। এতে তাঁর বিরুদ্ধে আনীত প্রধান অভিযোগগুলো ছিল- (১) ক্যাথোলিক ধর্ম মত ও ধর্মীয় গুরুদের মতের বিরুদ্ধে মতপ্রকাশ (২) খ্রিস্টীয় ধর্মমত অনুসারে স্রষ্টার ত্রি-তত্ত্ববাদ, যীশুর মৃত্যু ও পরে আবার শিষ্যদের কাছে দেখা দেয়ার বিষয়গুলো বিশ্বাস না করা (৩) যীশু ও তাঁর মা মেরিকে যথাযথ সম্মান না করা (৪) এই মহাবিশ্বের মতো আরো মহাবিশ্ব আছে, পৃথিবী গোল, সূর্য এই মহাবিশ্বের কেন্দ্র নয় এবং এটি একটি নক্ষত্র ছাড়া আর কিছু নয়- এই ধারণা পোষণ করা


রোমান ইনকুইজিশনের ইনকুইজিটর কার্ডিনাল বেলারমাইন ব্রুনোকে তাঁর ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চাইতে বলেন। কিন্তু ব্রুনো তা করতে অস্বীকৃতি জানান। ১৬০০ সালের ২০ জানুয়ারি পোপ ৮ম ক্লেমেন্ট ব্রুনোকে একজন ধর্মদ্রোহী বলে রায় দেন ও তাঁকে মৃত্যুদণ্ড দেন। রায় শুনে ব্রুনো বিচারকদের শাসিয়ে দিয়ে বলেন, “ আপনারা হয়তো আমার সাথে হেরে যাবার ভয়ে আমার বিরুদ্ধে এই রায় দিয়েছেন। আমি এটি গ্রহণ করলাম।‘ ১৭ ফেব্রুয়ারি তাঁকে রোমের কেন্দ্রীয় বাজার Campo de' Fioriএ নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাঁকে সবার সামনে খুঁটির সাথে বেঁধে পুড়িয়ে মারা হয়। তাঁর দেহভস্ম এরপর ছড়িয়ে দেয়া হয় টিবের নদীতে। ব্রুনো তাঁর মৃত্যুর পর প্রভূত সম্মান লাভ করেন। মহাশূন্য নিয়ে তাঁর মতবাদই ধীরে ধীরে সবার কাছে সঠিক বলে পরিগণিত হয়। তাঁকে ‘বিজ্ঞানের জন্য শহীদ’ বলে সম্মান জানানো হয়। তাঁর জন্য রইলো অনেক অনেক শ্রদ্ধা।




রিলেটেড নিউজ:


গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ:




 শীর্ষ খবর

অনির্দিষ্টকালের জন্য সান্ধ্য কোর্স বন্ধ ঘোষনা

সান্ধ্য কোর্স বন্ধে ইউজিসি’র নির্দেশনা

কুষ্ঠ রোগীদের ওষুধ দেশে তৈরির করুন

মানব উন্নয়ন সূচকে এগিয়েছে বাংলাদেশ

চলো অঙ্ক নিয়ে খেলি

বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের বেশি করে খাওয়া উচিত: আন্দ্রে রাসেল

মিয়ানমার সেনাপ্রধানের অ্যাকাউন্ট মুছে ফেলেছে ফেসবুক

বসানো হলো পদ্মা সেতুর ১৮তম স্প্যান

জবিতে আন্তঃবিভাগ ক্রিকেট প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরন

গত ৪০ বছর ধরেই আমার ওজন ৬২ কেজি: মাহাথির মোহাম্মদ

গণহত্যার অভিযোগ প্রকাশ্যে স্বীকার করতে সু চির প্রতি ৭ নোবেলজয়ীর আহ্বান

৫ম স্থানে থেকে এসএ গেমস শেষ করলো বাংলাদেশ

ইন্টার মিলানের বিপক্ষে বার্সেলোনার ‘বি’ টিম!

৪০তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা শুরু ৪ জানুয়ারি

একনেকে শাহজালাল বিমানবন্দরসহ ৭ প্রকল্প অনুমোদন




বার্তা প্রধান: রেহমান কামাল
৩০১,ড.নবাব আলী টাওয়ার (৩য় তলা)
পুরানা পল্টন,ঢাকা-১০০০ ,বাংলাদেশ ।


ফোন :  02-7176978  মোবা:  01732-706938
Email :  editor.bdtimes@gmail.com


All Rights Reserved © bd-times.com

This site is developed by -khalid (emdad01557html5css3@gmail.com).

জিওদার্নো ব্রুনোঃ বিজ্ঞানের জন্য প্রাণ দেন যে বিজ্ঞানী